সর্বশেষ সংবাদ:
ফুলবাড়ীয়ায় নবাগত ওসির সাথে সাংবাদিকদের মতবনিমিয় মোংলা বন্দরে যুক্ত হচ্ছে আরও ৩টি অত্যাধুনিক মোবাইল ক্রেন কালিয়াকৈরে চাঁদা তুলে রাস্তা মেরামত করেছে এলাকাবাসী জুড়ী উপজেলার আমতৈল নামক স্থানে প্রাইভেকার রেখে পালিয়েছে চোরাকারবারিরা মোংলায় গাঁজাসহ ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ সিরাজদীখানে ৬ জনকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত ধোবাউড়ায় নিতাই নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ভেসে গেছে একটি বসতবাড়ি, ঝুঁকিতে রয়েছে প্রায় পনেরটি বাড়ি ধোবাউড়ায় আশ্রয়ন প্রকল্প পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক কালিয়াকৈরে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ট্রাফিক পুলিশের চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি ও মামলা মোংলা বন্দরের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৯ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায়

মোংলা বন্দরে যুক্ত হচ্ছে আরও ৩টি অত্যাধুনিক মোবাইল ক্রেন

এম এইচ শান্ত, মোংলা প্রতিনিধিঃ- ক্রেন নিয়ে মোংলা বন্দরে ভিড়েছে বিদেশি জাহাজ
অত্যাধুনিক মোবাইল হারবার ক্রেন নিয়ে মোংলা বন্দরে ভিড়েছে বিদেশি জাহাজ ইমকি। ইতালির পতাকাবাহী এ জাহাজটি বুধবার (৭ জুলাই) দুপুরে বন্দরের নয় নম্বর জেটিতে নোঙর করে। মোংলা বন্দরের হারবার মাস্টার কমান্ডার শেখ ফখর উদ্দিন এ তথ্য জানান।

জাহাজটিতে মোংলা বন্দরের জন্য তিনটি অত্যাধুনিক মোবাইল হারবার ক্রেন ছাড়াও ৮০টি প্যাকেজে করে এর মূল্যবান যন্ত্রাংশ আনা হয়েছে। জাহাজটির স্থানীয় শিপিং এজেন্ট অলসিস শিপিং লিমিটেডের প্রতিনিধি সাখাওয়াত হোসেন মিলন বলেন, ‘গত একমাস আগে জার্মানের রকস্ট্রক বন্দর থেকে মোবাইল ক্রেন নিয়ে মোংলা বন্দরে ছেড়ে আসে ইমকি জাহাজটি। অত্যাধুনিক এই ক্রেন তৈরি করেছে জার্মানির লিভার কোম্পানি। এটি মোংলা বন্দরে সরবরাহ করে সাইফ পাওয়ার লিমিটেড।’
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের যান্ত্রিক ও তড়িৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সোহেল রানা বলেন, ‘এসব ক্রেন দিয়ে বন্দরে আসা ১২ সারির জাহাজের কন্টেইনার একসঙ্গে স্থানান্তর করা যাবে। ১৩শ’ ৩২ মেট্রিক টন ওজনের এই মোবাইল হারবার ক্রেনের জন্য ব্যয় হয়েছে ১২০ কোটি টাকা। আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে ইমকি জাহাজ থেকে অত্যাধুনিক এসব ক্রেন খালাস করে জার্মান প্রকৌশলীদের দিয়ে এটি বন্দরের জেটিতে সংযুক্ত করা হবে।’
এর আগে গত ১৫ জুন আরও দুটি মোবাইল হারবার ক্রেন আমদানি করে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ।
বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধি ও আধুনিক করতে নতুন নতুন ইকুইপমেন্ট সংযোজন করা হচ্ছে জানিয়ে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, ‘নানামুখী উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে বিদেশিরা এই বন্দর ব্যবহারে আগ্রহ বাড়াচ্ছেন। এরই মধ্যে এটি লাভজনক বন্দরে পরিণত হয়েছে। বন্দরটি সব জটিলতা কাটিয়ে এখন ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এ জন্য বন্দরের রাজস্ব আয় বেড়েছে। বন্দর উন্নয়নে আরও প্রায় ৭শ’ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।’

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের অপশনে ক্লিক করুন

More News Of This Category